অন্যন্য

কেন্দ্রীয় বাজেট সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য

অর্থনীতি ও সংবিধান

কেন্দ্রীয় বাজেটঃ  বাজেট এক বছরের জন্য আর্থিক পরিকল্পনা। এটিতে দেশের পরিকল্পিত বিক্রয় পরিমাণ এবং আয়, সংস্থানগুলির পরিমাণ, আয় এবং ব্যয়, সম্পদ, দায় এবং নগদ প্রবাহ অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে। সংস্থাগুলি, সরকার, পরিবার এবং অন্যান্য সংস্থাগুলি পরিমাপযোগ্য শর্তে ক্রিয়াকলাপ বা ইভেন্টগুলির কৌশলগত পরিকল্পনা প্রকাশ করতে এটি ব্যবহার করে।

অর্থাৎ জাতীয় বাজেট দেশের সরকার প্রণীত একটি বার্ষিক দলিল যাতে রাষ্ট্রের সাংবাৎসরিক আয়-ব্যয়ের পরিকল্পনা প্রকাশ করা হয়। বাজেট ইংরেজি শব্দ যার ব্যুৎপত্তিগত অর্থ “থলে” বা ইংরেজিতে Bag। অতীতে থলেতে ভ’রে এটি আইন সভা বা সংসদে আনা হতো বলে এই দলিলটি ‘বাজেট’ নামে অভিহিত হয়ে আসছে।

কেন্দ্রীয় বাজেট হল ভারতের বার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন, যা পর্যায়ক্রমিক ভিত্তিতে সরকা আয়-ব্যয়ের একটি অনুমান। ভারতীয় সংবিধানের ১১২ নম্বর ধারা অনুযায়ী, বাজেট পেশ । সরকারের বাধ্যতামূলক কাজ। ঠিক সেই রীতি মেনেই, ১ ফেব্রুয়ারি সােমবার সংসদে ২০- ২২ আর্থিক বছরের বাজেট পেশ করলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। এক পলকে দেখে নেওয়া যাক এবছরের বাজেট সম্পর্কিত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য।

কেন্দ্রীয় বাজেট সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য

  • মূলধনী খরচ বাড়ানাে হল। এজন্য বরান্দ করা হয়েছে ৫.৫৪ লাখ কোটি টাকা।
  • ৭৫ বছর বা তার বেশি বয়সি পেনশনভোগীদের আয়কর রিটার্ন জমা দিতে হবে না। ব্যাঙ্কে পেনশনে টিডিএস কাটা হবে না।
  • দেরিতে পিএফ জমা দিলে টাকা কাটা হবে না। শেয়ারের ডিভিডেন্টের ওপর টিডিএস কাটা হবে না।
  • পুরনাে আয়করের হিসাব খতিয়ে দেখার সময় কমিয়ে ৩ বছর করা হল (আগে ছিল ৬ বছর)।
  • স্থাবর সম্পত্তির মূল্যায়ন কর্মসূচি শুরু।
  • বস্ত্র শিল্পের ক্ষেত্রে বিনিয়ােগ পার্ক তৈরি করবে কেন্দ্রীয় সরকার। ৭টি বস্ত্রশিল্প পার্ক তৈরি হবে। বিশ্বমানের রফতানি পরিকাঠামাে তৈরি হবে।
  • করােনা প্রতিষেধক খাতে ৩৫,০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ। প্রয়ােজনে বরাদ্দ আরও বাড়ানাে হবে।
  • ২০ বছরের পুরনাে ব্যক্তিগত গাড়ি ও ১৫ বছরের পুরনাে বাণিজ্যিক গাড়ি স্বেচ্ছায়বাতিল করলে ইনসেন্টিভ পাওয়া যাবে।
  • ২০২২ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত গৃহঋণের সুদে দেড় লাখ টাকা পর্যন্ত কর ছাড়।
  • সব স্তরের কর্মীরা ন্যূনতম মজুরি পাবেন। মহিলারাও এই সুবিধা পাবেন। নাইট শিফটে কাজ করা মহিলাদের নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করতে হবে।
  • বন্দর ব্যবস্থাপনা এবার বেসরকারি হাতে দেওয়া হবে। দেশের বেশ কয়েকটি বড় বন্দর এবার বেসরকারি সংস্থার কাছে হস্তান্তর করা হবে।
  • স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নয়া ঘাষণা। আত্মনির্ভরতায় জোর। বরাদ্দ | ৫৪,০০০ কোটি টাকা। বরাদ্দ বাড়ল ১৩৭%।
  • উচ্চশিক্ষা কমিশন তৈরি হবে।
  • শিশুদের পুষ্টিতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।
  • গম ও ডাল জাতীয় শস্যে ন্যূনতম সহায়ক মূল্য বাড়ল।
  • মেট্রো লাইট’ ও মেটো নিও নামে ২টি নতুন প্রকল্পের ঘোষণা।
  • জনজাতি এলাকায় ৭৫৮টি নতুন স্কুল।
  • স্কুলের পরিকাঠামাে উন্নয়নের জন্য ১৫,০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।
  • আদিবাসীদের জন্য ৭৫০টি নতুন একলব্য মডেল স্কুল তৈরি করা হবে।
  • ২০২১-২২ আর্থিক বছরের মধ্যে এয়ার ইন্ডিয়ার বিলগ্নিকরণ প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হয়ে যাবে।
  • স্বচ্ছ ভারত অভিযান এর জন্য ১ লাখ ৪১ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ।
  • জম্মু ও কাশ্মীরে গ্যাস পাইপলাইন প্রকল্প।
  • গ্রামীণ পরিকাঠামাে তহবিলে ৪০,০০০ কোটি টাকা।
  • চা শ্রমিকদের কল্যাণে ১,০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।
  • জাতীয় অনুবাদ প্রকল্প চালু হবে, যার মাধ্যমে সরকারি নথি প্রাদেশিক ভাষায় পড়া যাবে।
  • এলআইসি’র শেয়ার খােলা বাজারে।
  • রেলে বরাদ্দ ১ লাখ ১০ হাজার ৫৫ কোটি টাকা।
  • ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের জন্য ১৫,৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ।
  • পাব্লিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (PPP) মডেলে ১০০টি সৈনিক স্কুল তৈরি হবে।
  • উজ্জ্বলা যােজনা’র আওতায় আরও ১ কোটি গরিব পরিবারকে বিনামূল্যে এলপিজি সরবরাহ।
  • কৃষি পরিকাঠামাের উন্নতিতে সেস।
  • পরিযায়ী শ্রমিকদের অল্প ভাড়ায় ঘর দেওয়ার পরিকল্পনা।
  • ডিজিটাল ইন্ডিয়ার স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করতে এবার ভারতের ইতিহাসে এই প্রথমবার ডিজিটাল জনগণনা হবে। আসন্ন আদমসুমারির জন্য বরাদ্দ ৩,৭৬৮ কোটি টাকা।

বাংলা কী পেল

  • কলকাতা-শিলিগুড়ি ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক (৬৭৫ কিলােমিটার) সংস্কারে ২৫,০০০ কোটি টাকারাদ্দ। এই জাতীয় সড়ক নির্মাণের ভার দেওয়া হবে বেসরকারি সংস্থাকে।
  • খড়গপুর থেকে বিজয়ওয়াড়া ইস্ট কোস্ট করিডর ও খড়গপুর-ভুশওয়াল-ডানকুনি আর রাজখরসাওয়া-অন্ডাল ইস্ট ওয়েস্ট সাব করিডর তৈরি করা হবে।
  • ২০২২ সালের জুনের মধ্যে, পূর্ব ও পশ্চিম পণ্যবাহী করিডরের কাজ শেষ হবে।

এবছরের বাজেট পেপারলেস

  • করোনা আবহে এই প্রথমবার পেপারলেস বাজেট পেশ করেছেন নির্মলা সীতারমণ! ট্যাব দেখেই গোটা বাজেট পেশ করেছেন তিনি। কিন্তু সাধারণ মানুষ যাতে বাজেট সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য পান, সেজন্য ইউনিয়ন বাজেট নামে একটি বিশেষ অ্যাপস এনেছে কেন্দ্রীয় সরকার। এছাড়াও, সরকারি ওয়েবসাইট www.indiabudget.gov.in থেকে এই অ্যাপস ডাউনলােড করা যাবে। লগ ইন বা রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই হিন্দি ও ইংরিজিতে এই বাজেটের ১৪টি নথি পাওয়া যাবে অ্যাপসটিতে।

দাম বাড়ল

মােবাইল ফোন, চার্জার, পাওয়ার ব্যাঙ্ক, সােলার ইনভার্টার, এলইডি ল্যাম্প, ফ্রিজ ও এসি যন্ত্রের কম্প্রেসর, চর্মজাত জিনিসপত্র, বিদেশ থেকে আমদানি করা রক্ত, দামি পাথর, সুড়ঙ্গ খোঁড়ার যন্ত্র, কাবলি চানা-সহ বিভিন্ন রকমের ডাল, ইউরিয়া, আমদানি করা গাড়ির যন্ত্রাংশ।

দাম কমল

 সােনা, রুপা, লােহা, ইস্পাত, স্টিলের বাসনপত্র, নাইলনের কাপড়, তামার জিনিস, বিমা, জুতাে, বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি, কৃষিক্ষেত্রে কাজে লাগে এমন জিনিস।

এটিও পড়ুন – দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার সাধারণ জ্ঞান

ট্যাগঃ কেন্দ্রীয় বাজেট , জেনে কেন্দ্রীয় বাজেট , কেন্দ্রীয় বাজেট যাবতীয় তথ্য PDF, ফ্রী কেন্দ্রীয় বাজেট, কেন্দ্রীয় বাজেট  তথ্য।

Leave a Response