ভারতীয় ভূগোলপশ্চিম বঙ্গ

দার্জিলিং জেলা সম্পর্কিত সাধারণ জ্ঞান প্রশ্ন উত্তর

মাউন্ট এভারেস্ট

দার্জিলিং জেলাঃ দার্জিলিং জেলা (Darjeeling) হল ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের জলপাইগুড়ি বিভাগের একটি জেলা। এটি রাজ্যের উত্তর অংশে অবস্থিত। দার্জিলিং জেলা মনোরম শৈলশহর ও দার্জিলিং চায়ের জন্য বিখ্যাত। দার্জিলিং এই জেলার সদর শহর। কালিম্পং, কার্শিয়ং ও শিলিগুড়ি হল এই জেলার অপর তিন প্রধান শহর। এই জেলার অপর গুরুত্বপূর্ণ শহর মিরিক একটি বিখ্যাত পর্যটনকেন্দ্র।

ভৌগোলিকভাবে এই জেলা দুটি অঞ্চলে বিভক্ত – পার্বত্য অঞ্চল ও সমতল। এই জেলার গোটা পার্বত্য অঞ্চলটি বর্তমানে গোর্খাল্যান্ড আঞ্চলিক প্রশাসন নামে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অধীনস্থ এক আধা-স্বায়ত্ত্বশাসন সংস্থার এক্তিয়ারভুক্ত। এই এলাকা দার্জিলিং, কালিম্পং ও কার্শিয়ং মহকুমায় বিভক্ত। দার্জিলিং হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত সমভূমিতে শিলিগুড়ি মহকুমা অবস্থিত। এই সমভূমি তরাই নামেও পরিচিত। এই জেলার উত্তরে সিক্কিম রাজ্য, দক্ষিণে বিহার রাজ্যের কিশানগঞ্জ জেলা, পূর্বে জলপাইগুড়ি জেলা ও পশ্চিমে নেপাল। ২০১১ সালের হিসেব অনুসারে, দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার পরেই এই জেলা পশ্চিমবঙ্গের দ্বিতীয় সর্বনিম্ন জনসংখ্যা-বহুল জেলা। কিন্তু পরবর্তীতে এই জেলা থেকে কালিম্পং জেলা গঠনকালে বর্তমান দার্জিলিং জেলার জনসংখ্যা ২৩ টি জেলার মধ্যে ২০ তম ৷ অায়তনের ভিত্তিতে জেলাটির স্থান ১৯ তম ৷ সোর্স – উকিপিডিয়া 

দার্জিলিং জেলা সম্পর্কিত সাধারণ জ্ঞান প্রশ্ন উত্তর

947 সালে স্বাধীনতার পর দার্জিলিং পশ্চিমবঙ্গের প্রেসিডেন্সি বিভাগে আসে।

  •  আয়তনঃ 3,149 বর্গ কিমি.।
  •  অক্ষাংশ ও দ্রাঘিমাংশগত অবস্থানঃ এই জেলা 26°31 উত্তর অক্ষরেখা থেকে 27°13′ 87°59′ পূর্ব দ্রাঘিমারেখা থেকে ৪৪53′ পূর্ব দ্রাঘিমারেখা পর্যন্ত বিস্তৃত।
  • সীমানাঃ উত্তরে-সিকিম রাজ্য, দক্ষিণে-দক্ষিণবঙ্গের উত্তর দিনাজপুর জেলা ও বিহারের পূ্ণিয়া জেলা, পূর্বে-জলপাইগুড়ি জেলা, ভুটান ও বাংলাদেশ এবং পশ্চিমে-নেপাল অবস্থিত।
  • ভূ-প্রকৃতিঃ উত্তরে হিমালয় পার্বত্য অঞ্চল এবং দক্ষিণে পর্বতের পাদদেশীয় তরাই অঞ্চল।
  •  জলবায়ুঃ গ্রীষ্মকালে গড় উষ্ণতা 16° -17° সে. এবং শীতকালে 5° -6° সে. থেকে1 -5° সে. পর্যন্ত হয়। পর্বতে 400-600 সেমি, এবং তরাই অঞ্চলে গড় বার্ষিক 200-250 সেমি, বৃষ্টিপাত হয়।
  • নদ নদীঃ তিস্তা, তিস্তার পূর্বদিকের নদীগুলির মধ্যে জলঢাকা, লিস, গি, চেল নদী এবং পশ্চিমদিকের নদীগুলির মধ্যে মহানন্দা, বালাসন, মেচি প্রধান।

এটিও পড়ুন – ঠাণ্ডা লড়াই সম্পর্কিত প্রশ্ন উত্তর PDF সহ

  • স্বাভাবিক উদ্ভিদঃ (1) ক্রান্তীয় চিরহরিৎ, (2) উপক্রান্তীয় চিরহরিৎ, (3) সরলবর্গীয়, (4) আল্লীয় তৃণভূমি জাতীয় উদ্ভিদ লক্ষ্য করা যায়।
  • অরণ্যাঞ্চল । 38.28%
  • মৃত্তিকাঃ পডসল মাটি, ধূসর বা বাদামী রঙের মাটি,নুড়ি, কাকর, বালিমিশ্রিত মাটি দেখা যায়।
  • খনিজঃ দার্জিলিং পার্বত্য অঞ্চলে সামান্য পরিমাণে ডলােমাইট, গন্ধক, গ্রাফাইট ও নীচুমানের কয়লা পাওয়া যায়।
  • শিল্প চা শিল্প, কাষ্ঠশিল্প, প্যাকিংবা তৈরি, ফল প্রক্রিয়াকরণ শিল্প গড়ে ওঠেছে।
  • জনসংখ্যা মােট জনসংখ্যা—j6,05,900 জন
  • জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গকিমিতে 510
  • সাক্ষরতার হার) 62.66 শতাংশ।
  • প্রশাসনিক কাঠামােঃ মহকুমা-4টি (দার্জিলিং সদর, কালিম্পং, কার্শিয়াং, শিলিগুড়ি) গ্রাম-পঞ্চায়েত সমিতি134, আসন সংখ্যা–405; পঞ্চায়েত সমিতি–4, আসন সংখ্যা–64; পৌরসভা—5টি। থানা-27টি, বিধান সভার আসন-5টি, লােকসভার আসন1টি।
  • দর্শনীয় স্থানঃ  (1) দার্জিলিং, (2) কালিম্পং, (3) কার্শিয়াং।

এটিও পড়ুন – অর্থনীতি সম্পর্কিত প্রশ্ন উত্তর

1 Comment

Leave a Response